রাজ্য সরকারি প্রকল্প ব্যবসা প্রযুক্তি টেলিকম চাকরির খবর অর্থনীতি স্কলারশিপ
Advertisements

শীতে গিজার চালাতে গিয়ে এই ভুল করলেই চরম বিপদ! ফেটে যাবে বোমার মতো

Geyser Safety Tips: দোরগোড়ায় উপস্থিত শীতের মরসুম। দিনের বেলায় ভালোভাবে জানান না দিলেও, রাতের বেলায় হিমেল হাওয়া ঠিকই কনকনে শীত আসার আগামবার্তা বয়ে নিয়ে আসছে। এই অবস্থায় আগে থেকেই রুম…

Geyser Safety Tips: দোরগোড়ায় উপস্থিত শীতের মরসুম। দিনের বেলায় ভালোভাবে জানান না দিলেও, রাতের বেলায় হিমেল হাওয়া ঠিকই কনকনে শীত আসার আগামবার্তা বয়ে নিয়ে আসছে। এই অবস্থায় আগে থেকেই রুম হিটার বা গিজার না জোগাড় করলে শীত কাটানো মুশকিল হয়ে যেতে পারে, এই ভেবে অনেকে শীত ঢোকার আগে বাড়িতে গিজার ও হিটার কিনে ফেলেন। এই দুই বৈদ্যুতিক জিনিসপত্র সাধারণত ভালো মানের কেনা হলেও, বহু মানুষই আর্থিক সামর্থ্যের কথা মাথায় রেখে সস্তায় কিনতে যান। আর এই সিদ্ধান্তই জীবনে বিপদ ডেকে আনতে পারে।
আজকের প্রতিবেদনে গিজার সংক্রান্ত বিপদ এড়াতে কিছু সতর্কতামূলক উপদেশ শেয়ার করা হল (Geyser Safety Tips)।

Geyser Safety Tips

গিজার সংক্রান্ত প্রয়োজনীতা সতর্কতা (Geyser Safety Tips)

● গিজার কেনার সময়ে দিতে হবে বিশেষ নজর: গিজার কেনার সময়ে আইএসআই চিহ্নিত গিজার কিনতে হবে। নিজে না লাগিগে কোনো মিস্ত্রিকে দিয়ে এই কাজ করাতে হবে। গিজার আগে লাগানো হলেও দীর্ঘ সময় পরে ব্যবহার করার আগে সার্ভিসিং করিয়ে নিতে হবে। আর্থিং ঠিক আসে কিনা সেটাও দেখতে হবে গিজার বাড়িতে লাগানোর সময়ে।
● গিজার ব্যবহার করার সময় সতর্ক হতে হবে: গিজার ব্যবহার করার সময়ে বিশেষ কয়েকটা বিষয়ে নজর দেওয়া উচিত। নিম্নে এই বিষয়ে সংক্ষেপে আলোচনা করা হল-

Geyser Safety Tips

১. সঠিক সময়ে বন্ধ করতে হবে: অনেকেই জল গরম করার পরে গিজার বন্ধ করতে ভুলে যান। এমনটা করলে হবে না। কাজ শেষ হলেই গিজার বন্ধ করতে হবে। নইলে রীতিমতো টাইম বোমার মতো বিস্ফোরণ ঘটতে পারে। তবে অটোমেটিক গিজার থাকলে অন্তত এই বিষয়ে চিন্তার কোনো ব্যাপার থাকে না। কারণ, জল গরম হলেই এক্ষেত্রে গিজার নিজে থেকে বন্ধ হয়ে যায়।

২. বৈদ্যুতিক শক থেকে বাঁচার উপায় খুঁজতে হবে: ইলেকট্রিক শক লাগার ঝুঁকি প্রায় প্রত্যেক বৈদ্যুতিক জিনিসপত্রেই থাকে। আর তাই কোনো ভিজে জায়গা যেমন, বাথরুমে গিজার বসাতে গেলে নিচের দিকে না বসিয়ে একটু উঁচু জায়গায় বসাতে হবে। একটি উঁচু জায়গায় রাখলে শিশুদেরও হাত পৌঁছনোর ভয় থাকবে না। বাথরুমে গিজার লাগালে একটু এক্সজস্ট ফ্যানও সেখানে লাগানো উচিত। এমনটা করলে গিজার থেকে বেরোনো প্রপেন ও বিউটেন গ্যাস বাথরুমে থেকে বেরিয়ে যাবে। আসলে এই দুই গ্যাস কার্বনডাই-অক্সাইড তৈরি করতে পারে, তাই কার্বনডাই-অক্সাইডের প্রভাবে অজ্ঞান না হতে চাইলে বাথরুমে গিজারের পাশাপাশি একটি এক্সজস্ট ফ্যানও লাগাতে হবে।